চীনে ভাইরাস আতঙ্ক : বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা জারির সম্ভাবনা

অনলাইন ডেস্ক : চীনের বাইরে ক্রমশ ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী ভাইরাস। এতে আন্তর্জাতিক মহলে উদ্বেগ বাড়ছে। করোনা ভাইরাসের আক্রমণে বুধবার পর্যন্ত চীনে অন্তত ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা অন্তত ৫৪০। চীনের বাইরে থাইল্যান্ড ও জাপানে তিনজনের সংক্রমণের খবর মিলেছিল। সুদূর মার্কিন মুলুকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। এর জেরে বাড়ছে আতঙ্ক। এই পরিস্থিতিতে আগামী বৃহস্পতিবার জরুরি বৈঠকে বসছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’র (ডব্লিউএইচও) বিশেষ ক্ষমতাপ্রাপ্ত বিশেষজ্ঞদের একটি কমিটি।

চীনা ভাইরাসের বিস্তারের জেরে বিশ্বে স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা জারির মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে কি-না, সে বিষয়ে এই বৈঠকে সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। উল্লেখ্য, গত দশকে এখনও পর্যন্ত মাত্র পাঁচবার বিশ্বজুড়ে স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা জরুরি মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল।

চীনা ভাইরাসের বিস্তার যে উদ্বেগজনক, তা এক বাক্যে স্বীকার করে নিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাসচিব তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসাস। উদ্ভূত পরিস্থিতিকে জটিল এবং উদ্বেগজনক আখ্যা দিয়েছেন তিনি।

বুধবার সংবাদমাধ্যমকে তিনি জানিয়েছেন, এই বিষয়ে আমি খুবই গুরুত্ব দিয়ে দেখছি। সমস্ত তথ্যপ্রমাণ যাচাই করে পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় সমস্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’ কি ভাবে এই করোনা ভাইরাস মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ল চিনা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ডব্লিউএইচও তা তদন্ত করে দেখছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

চীনে যে হারে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে তাতে অদূর ভবিষ্যতে তা মহামারির আকার নিতে পারে বলে আশঙ্কা করছে খোদ চীনা প্রশাসন। চোরাচালান হওয়া বন্যপ্রাণী থেকে এই ভাইরাস মানুষের মধ্যে ছড়িয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হয়েছে।

২০০২-২০০৩ সালে সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিনড্রোম বা সার্সের সংক্রমণে দুনিয়াজুড়ে প্রায় ৮০০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। তার পিছনেও ছিল করোনা ভাইরাস। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, এই নতুন সংস্করণ সেই সাবেক করোনা ভাইরাসেরই জ্ঞাতি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.