পোশাকের দাম ৩ গুণ চাওয়ায় জরিমানা, ব্যবসায়ীদের সড়ক অবরোধ

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : কেনা দামের চেয়ে তিন গুণ দামে জামা বিক্রির দায়ে এক দোকানদারকে জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। প্রতিবাদে ওই দোকানদারসহ মার্কেটের অন্য দোকানদারেরা একত্র হয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের ওপর চড়াও হন। একপর্যায়ে দোকান বন্ধ করে মার্কেটের সামনের সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকেন তাঁরা। আজ সোমবার বিকেলে কুষ্টিয়ার পরিমল টাওয়ার মার্কেটে এ ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দোকান বন্ধ করা না-করা নিয়ে দুই মার্কেটের দোকানদারদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, সোমবার দুপুরে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জুবায়ের হোসেন চৌধুরীর নেতৃত্বে কুষ্টিয়া শহরের এনএস রোড এলাকায় অভিযানে বের হন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় শহরের কয়েকটি মার্কেটে অভিযান চালিয়ে কেনা দামের চেয়ে কয়েক গুণ বেশি দামে পোশাক বিক্রির দায়ে বেশ কয়েকটি দোকানকে মোট ৭৩ হাজার টাকা জরিমানা করেন আদালত। ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী হাকিম জুবায়ের হোসেন চৌধুরী বলেন, বেলা তিনটার দিকে তিনি ক্রেতা সেজে এনএস রোডে পরিমল টাওয়ারের এক দোকানে যান। সেখানে একটি থ্রি পিসের দাম জিজ্ঞেস করলে দোকানদার সাড়ে চার হাজার টাকা দাম চান। পরে পরিচয় দিয়ে পোশাকটির ক্রয়মূল্যের মেমো দেখতে চান তিনি। মেমোতে দেখা যায়, থ্রি পিসটির ক্রয়মূল্য দেড় হাজার টাকা।

আরেক দোকানে একটি থ্রি পিসের দাম চাওয়া হয় ৫ হাজার ৩০০ টাকা। কিন্তু মেমোতে দেখা গেছে, পোশাকটির ক্রয়মূল্য ২ হাজার ২০০ টাকা। ইউএনও বলেন, ব্যবসায়ীরা সাধারণ জনগণকে জিম্মি করে ব্যবসা করছেন। ক্রয়মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত দামে থ্রি পিস বিক্রির দায়ে বেশ কয়েকটি দোকানকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন-২০০৯ অনুযায়ী জরিমানা করা হয়। জরিমানা কেন্দ্র করে ভ্রাম্যমাণ আদালত সেখান থেকে চলে আসার সময় পরিমল টাওয়ারের দোকানমালিকেরা উত্তেজিত হয়ে পড়েন। তাঁরা টাওয়ারের সামনে এনএস রোডে গিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দিয়ে প্রতিবাদ করতে থাকেন।

এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের সঙ্গেও আগ্রাসী আচরণ করেন তাঁরা। এদিকে দোকানপাট বন্ধের খবরে এনএস রোডের বেশির ভাগ দোকানদার দোকান বন্ধ করে সড়কে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন। কিন্তু পরিমল টাওয়ারের সামনে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু মার্কেটের দোকান খোলা দেখে পরিমল টাওয়ারের দোকানদারেরা বাগ্‌বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। বিক্ষোভ করা দোকানদারদের অভিযোগ, ভ্রাম্যমাণ আদালত গণহারে জরিমানা করেছেন। এ কারণে তাঁরা বিক্ষোভ করেছেন। বিকেল চারটার দিকে ঘটনাস্থলে যান কুষ্টিয়া মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সঞ্জয় কুমার কুন্ডু। সেখানে তিনি বিক্ষোভরত ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে বলেন, কারও ইচ্ছা হলে তিনি দোকান বন্ধ রাখতে পারেন। কিন্তু অন্য কাউকে দোকান বন্ধ রাখার জন্য বাধ্য করা যাবে না।

Facebooktwitterredditpinterestlinkedin
Share:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *