ধূমপান করলে থাকবে না চাকরি, কড়া নির্দেশ ঝাড়খন্ডের মুখ্যমন্ত্রীর

অনলাইন ডেস্ক : আপনি কি ধূমপান করেন? তাহলে চাকরি নিয়ে টানাটানি হতে পারে। ভারতের ঝাড়খন্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন সরকার পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে চাকরি করতে গেলে ধূমপায়ীদের বদভ্যাসটি ছাড়তে হবে। তবেই টিকে থাকবে চাকরি।

এখানেই শেষ নয়। যে সব কর্মীরা ধূমপান করেন, তাদের এফিডেভিট দাখিল করে জানাতে হবে যে তারা ধূমপান ছেড়ে দিচ্ছেন। শুধু ধূমপানই নয়। কোনও ধরনের তামাকজাত দ্রব্যই তারা সেবন করতে পারবেন না বলে জানানো হয়েছে।

হেমন্ত সোরেন সরকার জানিয়েছে, প্রতিটি অফিস তামাক বর্জিত এলাকার তালিকায় পড়ছে। তাই কোনওভাবেই অফিসের মধ্যে বা অফিস চত্বরে ধূমপান করা যাবে না বা অন্য কোনও তামাকজাত দ্রব্য সেবন করা যাবে না। রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের হলফনামা দাখিল করতে বলা হয়েছে এই বিষয়ে।

ঝাড়খন্ড সরকারের নির্দেশ, যে সব চাকরিপ্রার্থীরা সরকারি চাকরির পরীক্ষায় বসছেন বা সরকারি চাকরি সদ্য পেয়েছেন, এই নিয়ম তাদের জন্যও বলবৎ হবে। ২০২১ সালের পয়লা এপ্রিল থেকে এই নিয়ম জারি করা হবে। রাজ্যের স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ দফতরের পক্ষ থেকে এই বিষয়ে জারি করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তি।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, তামাকজাত দ্রব্যের মধ্যে সিগারেট, বিড়ি, খৈনি, গুটখা, পান মশলা, জর্দা বা সুপারি, হুঁকো, ই-সিগারেট পড়ছে। ধোঁয়াহীন বা ধোঁয়াযুক্ত কোনও ধরনের তামাকজাত দ্রব্য সেবন করা যাবে না বলে কড়া নির্দেশিকা জারি করেছে রাজ্য সরকার।

সংবাদসংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, সম্প্রতি রাজ্য মন্ত্রিসভায় এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পরে স্টেট টোব্যাকো কন্ট্রোল কোঅর্ডিনেশন কমিটির বৈঠকের পর রাজ্যের মুখ্য সচিব সুখদেব সিং প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের জানান, সেক্রেটারিয়েট, পুলিশের সদর দফতর, জেলা ও ব্লকগুলির সবকটি সরকারি অফিসকে তামাকজাত দ্রব্যহীন এলাকা ঘোষণা করতে হবে। সেই নির্দেশ মত কাজ শুরু করে প্রশাসন। প্রতিটি সরকারি অফিসে টোব্যাকো ফ্রি জোনের বোর্ড লাগিয়ে দেওয়া হয়।

সূত্র: কলকাতা২৪।

Leave a Reply

Your email address will not be published.