জরিমানা করেছে জার্মানি ফেসবুককে

অনলাইন ডেস্ক : ঘৃণ্য বক্তব্য প্রতিরোধ আইন লঙ্ঘন করায় ফেসবুককে ২৩ লাখ মার্কিন ডলার জরিমানা করেছে জার্মান কর্তৃপক্ষ। অবৈধ কনটেন্টের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার পরও তা না সরানোয় এ জরিমানা করা হয়। সিনেট,বাংলাদেশ প্রতিদিন

জার্মানির ফেডারেল অফিস অব জাস্টিস এক বিবৃতিতে জানা যায়, গত বছরের প্রথম ৬মাসে ফেসবুক যে ট্রান্সপারেন্সি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল তাতে অভিযোগ করা কনটেন্টের খুব সামান্য অংশ সরানোর কথা বলা হয়েছিল। এ থেকে মানুষের মনে ব্যাপক অবৈধ কনটেন্ট ফেসবুকে থেকে যাওয়ার ও ফেসবুক তাদের সঙ্গে কেমন আচরণ করে সে বাজে বার্তা গেছে। জার্মান কর্তৃপক্ষ বলছে, ফেসবুক যে প্রতিবেদন প্রকাশ করে, তা অসম্পূর্ণ। এতে অবৈধ কনটেন্টের অভিযোগগুলো কীভাবে বিবেচনা করে সে বিষয়ে বিস্তাারিত কিছু থাকে না। এ ছাড়া অভিযোগের পর তার জবাবে সঠিক তথ্যও দেয় না ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

তবে জরিমানার বিরুদ্ধে ফেসবুকেরও আবেদন করার সুযোগ থাকছে। জরিমানা বিষয়ে তারা মুখ খোলেনি। জার্মানির ’নেটওয়ার্ক ইনফোর্সমেন্ট অ্যাক্ট’ অনুযায়ী ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম গুলোকে প্রতি ৬মাস পর পর অবৈধ কনটেন্ট ঠেকাতে তাদের কার্যকলাপের প্রতিবেদন প্রকাশ করতে হবে। প্রতি বছর ফেসবুক বিজ্ঞাপন থেকে যে আয় করে, সে তুলনায় জরিমানা সামান্য। গত জানুয়ারি থেকে মার্চ এ ৩মাসে ফেসবুক বিজ্ঞাপন থেকে ১৫.০৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করেছে। এ জরিমানার বিষয়টি প্রমাণ করে ফেসবুক ঘিরে চলমান নিরাপত্তা ও তথ্য ফাঁস কেলেঙ্কারির বিষয়ে নিয়ন্ত্রকরা সজাগ রয়েছে। ফেসবুকের বিরুদ্ধে ৫’শ কোটি মার্কিন ডলারের বিশাল জরিমানা করতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ট্রেড কমিশন। নিরাপত্তা সমস্যা ঠিকভাবে সমাধান করায় কোনো প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের ওপর এটাই সবচেয়ে বড় জরিমানার রেকর্ড হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.