হেরে যাচ্ছেন নেতানিয়াহু !

অনলাইন ডেস্ক : ইসরাইলের সাধারণ নির্বাচনে বুথ ফেরত জরিপে পিছিয়ে আছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু। এদিকে নির্বাচনের জিতে টানা পঞ্চমবারের মতো ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী হতে চান নেতানিয়াহু।
তবে ভোটের মাঠে তাকে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বেনি গান্টজ-এর শক্ত চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হচ্ছে। সাবেক সেনাপ্রধান গান্টজ দেশটির মধ্য ডানপন্থী ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টির নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

প্রথম দফার বুথফেরত জরিপে দেখা গেছে, নেতানিয়াহু ও তার ডানপন্থী জোট সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় ৬১টি আসন নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হয়েছে। জরিপে বেনি গান্টজ-এর খুব সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে থাকার আভাস মিলেছে। চ্যানেল ১২-এর জরিপে বলা হয়েছে, বেনি গ্যান্টজের নেতৃত্বাধীন বিরোধী জোট ৩৪টি আসনে বিজয়ী হতে পারে। বিপরীতে নেতানিয়াহুর দল লিকুদ পার্টির নেতৃত্বাধীন জোট পেতে পারে ৩৩টি আসন। জয়েন্ট লিস্ট অ্যালায়েন্স অব আরব পেতে পারে ১১টি আসন। সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী অ্যাভিগডো লিবারম্যানের দল কট্টর ইহুদিবাদী ‘ইসরায়েল বেইতেনু’ পেতে পারে ৮টি আসন। সেক্ষেত্রে পরবর্তী জোট সরকার গঠনে তার জোরালো প্রভাব থাকবে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে।

বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সকালে উচ্ছ্বসিত সমর্থকদের উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছেন বেনি গ্যান্টজ। এ সময় তিনি বলেন, আনুষ্ঠানিক ফলের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। তবে জয়ের ব্যাপারে তার যথেষ্ট আত্মবিশ্বাস রয়েছে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু তার সমর্থকদের জানিয়েছেন, ইতোমধ্যেই জোট সরকার গঠনের বিষয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে।

১৭ সেপ্টেম্বরের নির্বাচন ছিল পাঁচ মাসের মধ্যে অনুষ্ঠিত ইসরায়েলের দ্বিতীয় সাধারণ নির্বাচন। গত ৯ এপ্রিল অনুষ্ঠিত নির্বাচনে কোনও পক্ষ নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ কিংবা জোট সরকার গঠনে ব্যর্থ হওয়ায় নতুন নির্বাচনের আয়োজন করতে হয়।

ইসরায়েলের ইতিহাসে এ প্রথম একই বছরে দু’টি সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের ঘটনা ঘটল। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে তিনটি দুর্নীতির মামলা রয়েছে। ইসরাইলের সাধারণ নির্বাচনে মোট ১২০টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে মোট ৩১টি দল। ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ছিল ১১ হাজার ১৬৩।

Leave a Reply

Your email address will not be published.