রোনালদোর ডিএনএ’র নমুনা চাইলো পুলিশ ধর্ষণ মামলায়

ক্রিয়া ডেস্ক: ফুটবলের মেগাস্টার ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর কাছে ডিএনএ’র নমুনা চেয়েছে লাস ভেগাস পুলিশ। তার বিরুদ্ধে ২০০৯ সালে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগের তদন্ত করতেই ডিএনএ’র নমুনা চাওয়া হয়েছে।
বিবিসি বলছে, লাস ভেগাস পুলিশের জারি করা এই পরোয়ানাটি ইতিমধ্যেই ইতালি কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে। যদিও প্রথম থেকেই রোনালদো তার বিরুদ্ধে ওঠা ধর্ষণের অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।
লাস ভেগাস পুলিশ জানিয়েছে, রোনাদোর আইনজীবীকে পরোয়ানার অনুলিপি পাঠানো হয়েছে। জানানো হয়েছে, শিগগিরই লাস ভেগাসে গিয়ে পর্তুগিজ সুপারস্টারকে ডিএনএ টেস্ট করাতে হবে। কবে তিনি আসছেন সেটাও আগে থেকে জানাতে হবে। অন্য যে কোনও ধর্ষণের মামলায় যে পদক্ষেপ নেওয়া হয়,এক্ষেত্রেও সেই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ।
তদন্তের ধারায় বোঝাচ্ছে, যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়েই ব্যাপারটাকে দেখছে লাস ভেগাস পুলিশ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ক্যাথরিনের পোশাকে ডিএনএ খুঁজে পেয়েছে পুলিশ। এবার সেই ডিএনএ’র সঙ্গে রোনালদোর ডিএনএ মিলিয়ে দেখতে চান তারা।
এদিকে রোনালদোর উকিল পিটার এস ক্রিস্টিয়ানসেন জানান, এটা তদন্তের স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। তিনি আরও বলেন, ‘রোনালদো সব সময়ই তার একটাই মত দিয়ে আসছে। ২০০৯ সালে লাস ভেগাসে যেটা হয়েছিল সেটা দুজনের সম্মতিতেই হয়েছিল। আর এটা অস্বাভাবিক নয় যে পুলিশ ডিএনএ’র নমুনা চাইছে।’
লাস ভেগাসের প্রাক্তন মডেল ৩৪ বছরের ক্যাথরিন মায়োরগা রোনালদোর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেন। তার দাবি, ২০০৯ সালে ১৩ জুন রোনালদোর সঙ্গে লাস ভেগাসের এক নাইট ক্লাবে আলাপ হয় তার। পরে সেখানকার একটি হোটেল কক্ষে এই মডেলের শ্লীলতাহানি করেন রোনালদো। সঙ্গে সঙ্গেই তিনি পুলিশকে জানিয়েছিলেন। কিন্তু রোনালদো তাকে ৩ লাখ ৭৫ হাজার ইউএস ডলার দিয়েছিলেন এ ঘটনায় মুখ না খোলার জন্য।
এ ব্যাপারে রোনালদোর উকিল জানান, আদালতের বাইরে বিষয়টি মিটিয়ে নিতে রাজি হয়েছিলেন ওই মডেল। কিন্তু তিনি তার কথা রাখেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.