বাদল :আমি সেই বিমানে ছিলাম না

অনলাইন ডেস্ক: সংসদে বাংলাদেশ জাসদের নির্বাহী সভাপতি ও সংসদ সদস্য মইনুদ্দীন খান বাদল বলেছেন, পত্র-পত্রিকায় দেখলাম গতকাল ছিনতাইয়ের চেষ্টার সময় আমি প্লেনে ছিলাম বলা হয়েছে। কিন্তু তখন ওই প্লেনে আমি ছিলাম না। আমি প্রথমেই ভুলটা ভাঙিয়ে দিতে চাই। কিন্তু চট্টগ্রামে প্রধানমন্ত্রীর একটা অনুষ্ঠান ছিল, আমি সেই অনুষ্ঠানের পরে ওখানে (চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে) এসেছি ঢাকায় আসার জন্য। 

তিনি বলেন, ‘আমি বিমানবন্দরে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দেখি লোকজন ছুটাছুটি করছে। জিজ্ঞাসা করলাম কি হয়েছে বললেন একটা প্লেন হাইজ্যাক হয়েছে। তারপর বলল বিমানে হাইজ্যাকার আছে। বলতে বলতে প্লেনটা ল্যান্ড করে।’ তিনি আরও বলেন, এটা কাকতালীয় হবে। এই প্লেনটাতেই প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম গিয়েছিলেন। এই যখন হচ্ছে, তখন আমার সঙ্গে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়কমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিংও ছিলেন। আমি বীরকে বললাম আমাদের নৈতিক দায়িত্ব একজন সংসদ সদস্য হিসেব বিষয়টি জানা। সেজন্য আমি বিমানবন্দরের টার্কমার্কে (যেখানে প্নেন নামে) চলে গেলাম। যাই হোক আমি তারপর থেকে শেষ পর্যন্ত ওখানে উপস্থিত ছিলাম। 

‘নানান কাহিনী বিস্তার লাভ করেছে। মোদ্দা কথা হলো একজন অস্ত্রধারী ব্যক্তি প্লেনের পেছন থেকে এসে অশ্রব্য ভাষায় গালাগালি করছিল। পাইলটকে বলেছিল তুমি দরজা খুলে দাও, পাইলট খুলে নাই। কতগুলো পত্রিকায় দেখলাম পাইলটের সঙ্গে মল্লযুদ্ধ হয়েছে। কেউ কেউ বলছে তখন সে একটা গুলি করেছে। পাইলট কখনো দরজা খোলেনি।’

‘পাইলট তাকে ব্যস্ত রাখতে আলোচনা করার চেষ্টা করেছে। তখন পাইলটকে ওই ব্যক্তি বলেছে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে চান। পাইলট তাকে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী নিশ্চয়ই কথা বলবেন কিন্তু একটু সময় লাগবে। অ্যাটিউচুড ছিল ব্যস্ত রাখা যাতে কোনো যাত্রীর ক্ষতি না করে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.