চাইনিজ ফুড করোনাভাইরাসের ঝুঁকি বাড়াচ্ছে?

অনলাইন ডেস্ক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস কেবল চীন নয় বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। এখন করোনাভাইরাসের আতঙ্কে ভুগছেন অনেকেই। এরইমধ্যে সেই আতঙ্ক আরও উসকে দিল চাইনিজ খাবার। নিয়মিত ফাস্ট ফুড ও চাইনিজ ফুড খাওয়া লোকজনও কিন্তু ছাড়তে বসেছে চাইনিজ ফুড ও চিকেন খাওয়া। হ্যাঁ, এমনটাই অভিমত অনেকের।

বিরাট সংখ্যক মানুষের ধারণা, চাইনিজ ফুডের বিভিন্ন ধরনের সস, চাউমিন থেকেই ছড়াচ্ছে করোনাভাইরাস। তাই অনেকেই ছাড়ছেন চাইনিজ ফুড।

আবার বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়াও বলছে একই কথা। এর আগেও অনেক ভাইরাস ছড়িয়েছিল ফাস্ট ফুড ও মাংস থেকেই। তাই এবারও এমন হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকেই।

চাইনিজ ফুডের কদরও কমেছে চীনের বাজারে। এদিকে, ভারতসহ অন্য দেশগুলোর রেস্তোরাঁয় যেসব চাইনিজ ডিশ বিক্রি হয়, সেগুলোর প্রায় সবগুলিতেই চিকেন থাকে। এই কারণেই সস, চাউমিনের পাশাপাশি চিকেনের প্রতিও ভীতি তৈরি হচ্ছে সাধারণ মানুষের মনে।

তবে বিশ্ব সাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) এবং ‘সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন প্রোগ্রাম’-এর ওয়েবসাইট থেকে জানা যাচ্ছে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার কারণগুলির ঝুঁকির তালিকায় চাইনিজ খাবার খাওয়া পড়ে না।

আমাদের মতো দেশগুলোরে অবশ্য ভয়টা অন্য জায়গায়। আমাদের দেশের অনেক মানুষই প্রায় প্রতিদিনই রেস্তোরাঁর খাবার খাওয়ার অভ্যাস তৈরী করেছেন। এদিকে রোজ রোজ রেস্তোরাঁর খাবার খাওয়ার অভ্যেস তৈরি করতে পারে শরীরের নানারকম সমস্যা। কারণ, রেস্তোরাঁর খাবারে ব্যবহার করা হয় ‘মনো সোডিয়াম গ্লুটামেট’ যাকে আমরা আজিনামোটো’ নামে চিনি। ‘আজিনামোটো’ আসলে প্যাকেটজাত ‘মনো সোডিয়াম গ্লুটামেট’ বিক্রয়কারী সংস্থার নাম। মাত্রাতিরিক্ত ‘মনো সোডিয়াম গ্লুটামেট’ ডেকে আনতে পারে বিভিন্ন ধরনের স্নায়ুর সমস্যা এবং বৃহদন্ত্র, ক্ষুদ্রান্ত্রের ক্যান্সার।

তাই, করোনায় আক্রান্ত না হলেও অনান্য নানারকম সমস্যা থেকে দূরে থাকতে এড়িয়ে চলুন চাইনিজ খাবার।সূত্র :জি-নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published.