‘বোন দিবস’ভালোবাসা দিবসে

অনলাইন ডেস্ক: ফেব্রুয়ারি মাসের ১৪ তারিখ বিশ্ব ভালোবাসা দিবস হিসেবে পালিত হয়। পৃথিবী সবসময় যুদ্ধে নয়, বিচ্ছেদে নয়, সহিংসতায় নয়, ভালোবাসাতেই জয় হয়েছে- এমন চিরন্তন প্রেমের মহিমায় সারাবিশ্বে উদযাপিত হয় দিনটি। তবে প্রেমের এ দিনটি বয়কট করে তা বরং ‘বোন দিবস’ হিসেবে পালন করার নির্দেশ দিয়েছে পাকিস্তানের একটি বিশ্ববিদ্যালয়।

দ্য ডনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পাকিস্তানের মধ্য পাঞ্জাব প্রদেশের ফয়সালাবাদ ইউনিভার্সিটি অব এগ্রিকালচার এমন ঘোষণা দিয়েছেন।বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর জাফর ইকবাল এ প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘আমাদের সংস্কৃতিতে নারীদের মা, কন্যা এবং স্ত্রী হিসেবে অনেক বেশি শক্তি দেওয়া হয়েছে। দুর্ভাগ্যবশত, আমরা নিজেদের সংস্কৃতি ভুলে গিয়েছি। পশ্চিমাদের হাওয়া আমাদের রক্তের সঙ্গে মিশে যাচ্ছে। এইসব রুখতেই আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে-তে ছাত্রীদের মধ্যে স্কার্ফ, শাল ইত্যাদি বিতরণ করা হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ওইদিন ‘সিস্টারস দিবস’ হিসেবে পালন করা হবে।’

টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, উপাচার্য মনে করেন ইসলাম সংস্কৃতিকে পশ্চিমী ধ্যানধারণা থেকে বের করে আনতে এই উদ্যোগ জরুরি। রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ভাইস চ্যান্সেলর জাফর বলেন, ‘এই দিনটির সাফল্য প্রমাণ করবে পাকিস্তানি ভাইবোনেরা পরস্পরকে কতো ভালবাসে।’

তবে এ বিষয়ে দেশটির বিশিষ্টজনরা বলছেন, বর্তমানে ইন্টারনেটের রমরমায় আমরা বেশি করে পশ্চিমা দুনিয়ার সঙ্গে মিশে যাচ্ছি। একটা দিন পালন করে এসব বন্ধ করা যাবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.