বেনাপোল এক্সপ্রেস-এর শুভ-উদ্ভোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

এবিএস রনি,(যশোর): যশোরের মানুষের দীর্ঘদিনের একটি দাবি পূরন হয়েছে আজ। আজ (বুধবার) উদ্বোধন হল বেনাপোল-ঢাকা বিরতিহীন ট্রেন ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস।বেলা সাড়ে এগারটায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ট্রেন চলাচলের উদ্বোধন করেন।
উদ্বোধন শেষে ট্রেনটি বেলা একটার দিকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাএী নিয়ে রওয়ানা হয়েছে। বেনাপাল-ঢাকা রুটের এই ট্রেনটি চলবে সপ্তাহে ছয় দিন। সাড়ে সাত ঘণ্টায় পৌঁছানো যাবে ঢাকায়। এজন্য ধন্যবাদ জানায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলামকে। আরও ধন্যবাদ জানায় যশোরের কৃতি সন্তান শামছুজ্জামানকে রেলের নতুন মহাপরিচালক করায়।মঙ্গলবার সকাল ৮ টার দিকে ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানিকৃত অত্যাধুনিক ট্রেনটি বেনাপোল স্টেশনে এসে পৌছায়। বর্ণিল সাজে সাজিয়ে ট্রেনটি উদ্বোধনের উপযোগী করা হয়।


রেলওয়ে সূত্র মতে, ট্রেনটি আজ বুধবারবেলা দেড়টায় বেনাপোল ছাড়বে। আবার রাত সাড়ে বারোটার দিকে ঢাকা থেকে বেনাপোলের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসবে।১২ বগির ৮৯৬ আসনের এই ট্রেন প্রতিদিন বেনাপোল স্টেশন থেকে ছেড়ে যশোর, ঈশ্বরদী ও ঢাকা বিমানবন্দরে যাত্রী ওঠানো-নামানোর জন্য সাময়িক বিরতি দিয়ে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের শেষ গন্তব্যে গিয়ে থামবে। বেনাপোল এক্সপ্রেস নন এসি শোভন ৪৮৫ টাকা, এসি চেয়ার ৯৩২ টাকা, এসি কেবিন ১৬৭৪ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর সঙ্গে যাত্রীদের আর কোনো চার্জ দিতে হবে না। এই ট্রেনে বিমানের মতো বায়ো-টয়লেট সুবিধা রয়েছে। আসনগুলোও আধুনিক।বর্তমানে যশোর-থেকে ঢাকার মধ্যে যে ট্রেন সার্ভিস চালু রয়েছে তা ঢাকায় পৌঁছানোর মধ্যে ১৪টি স্থানে বিরতি নেয়।


এতে যশোর থেকে ঢাকায় পৌঁছাতে ১০ থেকে ১১ ঘণ্টা সময় লেগে যায়। সেখানে চালু হওয়ার অপেক্ষায় থাকা বেনাপোল-ঢাকা বিরতিহীন ট্রেনটি সাড়ে ৭ ঘণ্টার মধ্যে গন্তব্যে পৌঁছাবে। বেনাপোল থেকে ট্রেনটি ছেড়ে অপারেশনাল স্টেশন যশোর জংশনে পৌঁছে ১৫ মিনিটের বিরতি দেবে। এ সময়ের মধ্যে রেলের ইঞ্জিন ঢাকামুখী ঘোরানো হবে। এরপর ঈশ্বরদী গিয়ে ট্রনের চালকসহ অপারেশনাল কর্মী বদলের জন্য আরও ১৫ মিনিটের বিরতি থাকবে। পরে ট্রেনটি ঢাকার কমলাপুর স্টেশনে শেষ গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। তবে এর আগে ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশনে কিছুক্ষণের জন্য ট্রেনটি থামানো হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.